Thursday, July 31, 2014

"তিনটে শালিক ঝগড়া করে রান্না ঘরের চালে..."

স্মৃতির সরণী বেয়ে ভেসেই চলেছি - ভাসতে ভাসতে একের পর এক বছরগুলো পিছে ফেলে চলেছি। Rewind করে করে ফেলে আসা স্মৃতির দল থেকে কতো কিছুই না ছেঁকে ছেঁকে দেখে নিচ্ছি। প্লেনে চেপে দেশ ছাড়া, প্রথম চাকরির ইন্টারভিউ, কলেজে পরীক্ষা দিতে যাচ্ছি, দিদির বিয়ে, বইমেলায় একা একা যাওয়া, দাদার বিয়ে, ঠাকুমার মারা যাওয়া, স্কুলে প্রথম সাইকেলে করে যাওয়া, কালীপূজার বাজি তৈরী করা, খেলার মাঠে মারামারি, ঘুড়ি ওড়ানো... হতে হতে ক্যাঁ-চ-চ করে গেলো ফিল্মের রোলটা আটকে - ব্যাস এরপর আর কিছুতেই rewind হছে না। কি আর করি, ভালো করে চোখ মেলে দেখি আটকে যাওয়া সেই স্মৃতি-ছবিটা - দেখি, আমি মাদুরে বসে, দুলে দুলে পড়েই চলেছি: 


"সেদিন ভোরে দেখি উঠে     বৃষ্টি বাদল গেছে ছুটে, 
      রোদ উঠেছে ঝিলমিলিয়ে   বাঁশের ডালে ডালে।
ছুটির দিনে কেমন সুরে   পুজোর সানাই বাজায় দূরে 
                তিনটে শালিক ঝগড়া করে 
                                         রান্না ঘরের চালে..."

আদি ও অকৃত্রিম - ছেলেবেলার 'সহজ পাঠ' 
বিশ্বভারতীর কপিরাইট উঠে যাওয়ায় সেই আসল সোনা-রঙের 'সহজ পাঠ' আর মোটেই আজকাল সহজলভ্য নয়। যা পাওয়া যায়, সেটা দিয়েই আপাতত: স্মৃতি মেরামতের কাজ করি --- আসুক ফিরে হারানো দিনের মেঘে ঢাকা আবছা স্মৃতির দল...  


পড়ুন এখানে সেই ফেলে আসা ছোটবেলার, মায়া-জড়ানো পড়ার বই  "সহজ পাঠ "..



অ্যাডভেঞ্চার অফ জুলিয়াস চ্যান্সার

If you like your comics full of mystery and adventure, with an emphasis on good story, and you love the worlds of Rider Haggard, Conan Doyle, Jules Verne, and Hergé, then you'll want to read The Rainbow Orchid.   

"The Rainbow Orchid" is a comic written and drawn by Garen Ewing, the first of a series of Julius Chancer books. It is set in the 1920s and follows Chancer's expedition to discover the mythical 'Rainbow Orchid'. Starting in England, the adventure takes the characters first to France, then Karachi in India and into the Indus Valley. It is drawn in the ligne claire style and published in English by Egmont, in Dutch by Silvester Strips, in French by BD Must Editions, in Spanish by NetCom2 Editorial, and in German by Salleck Publications.

In this spectacular epic featuring story, the hero "Julius Chancer", the adventurous assistant to historical researcher "Sir Alfred Catesby-Grey" embarks on a hazardous quest for the legendary, rainbow orchid, a mythical flower steeped in legend that was last mentioned by the ancient Greek philosopher Theophrastus. A genial British lord has inadvertently gambled his family legacy against a sinister flower collector, and Chancer needs to bail him out. 

Julius' epic journey takes him from 1920s Britain to the Indian subcontinent and its mysterious lost valleys. He scampers about the English landscape with an equally fearless actress in tow. The action, the old-fashioned scenery, the clear line drawing - everything is praisworthy and wonderful. It's nice to see a comic steeped in the 20s or 30s, without computers or superpowers, and the story was compelling. The art is extremely reminiscent of the Tintin volumes, as it captures that same charming air of innocence.

This story grabbed me from the first pages, and held my attention with plenty of chuckles and grimaces all the way to the end. If anything, this volume is too short, and may be a tiny bit juvenile, but that doesn't make it any less fun.

The author/artist did remarkable job of creating a fun and engaging story within this genre. The attention to detail is visible everywhere and the book is a pleasure to read. The only critique I might have about the lettering - it isn't done by hand. But I doubt most will notice this, and I certainly stopped noticing it after a few panels.I just wish it hadn't ended so quickly! If you love Tintin, you'll adore Julius Chancer.


Who is Garen Ewing?
Garen Ewing (born 1969, England) is an illustrator, designer and most notably a comic creator, being the writer and illustrator of "The Adventures of Julius Chancer - The Rainbow Orchid". As an aside, Ewing is a part-time researcher and writer on the Second Anglo-Afghan War (1878-80) - he was interviewed on BBC Radio for 'Making History' program in this capacity in October 2004.

Garen's love of drawing and writing goes back to when he was very young, and had to spend a lot of time in hospital, so his mum supplied him with plenty of comics to read, and pencils and blank paper to draw with, and he's been making comics ever since! Other jobs have included working at a mushroom farm, an airport hotel, a software company and doing loads and loads of illustrations for books, magazines, T-shirts, theaters and newspapers.

He's been the editor of a local entertainments guide (5D) and a comic strip anthology (Cosmorama). He's adapted Shakespeare's The Tempest into a comic and is the writer and artist behind The Rainbow Orchid. He's an expert on the Second Anglo-Afghan War of 1878-1880, he's half Scottish, one-sixteenth Romany Gypsy and plays bass guitar and does karate (though not at the same time).

Read here one of the adventures of Julius Chancer.






Henry by Carl Anderson

Carl Thomas Anderson (14 February 1865 – 4 November 1948) was an American cartoonist best remembered for his comic strip Henry. He was born in Madison, Wisconsin, the son of Norwegian immigrants. Anderson initially worked in his Norwegian immigrant father's Madison planing mill, where he developed carpentry skills, became a cabinetmaker and invented a patented folding desk, which is still being manufactured today. Near the end of the 19th century, he traveled the United States, drifting to Omaha, San Francisco and Seattle, where he worked until the city's 1889 fire. 

Carl Thomas Anderson (from Wikipedia)
At the age of 25, he developed a strong interest in drawing and went to Philadelphia. In 1894, his first art job was with the Philadelphia Times where he earned $12 a week drawing fashion illustrations. He was hired by Arthur Brisbane for Joseph Pulitzer's New York World at the end of the 1890s. His strip "The Filipino and the Chick" ran on the Sunday page of the World, attracting the attention of William Randolph Hearst, who offered more money at his New York Journal. 

Anderson's attempts at creating amusing comic strips such as "Raffles and Bunny" did not catch on. He freelanced, sending cartoon submissions to the well-read magazines of the era. Unable to reach higher and more profitable levels of cartooning, he needed to find further ways to support himself. Anderson gave up on the big cities and moved back to Wisconsin. He took up teaching art at a vocational school. Success seemed a distant dream for Anderson.... until one evening as he gave his lecture to his cartooning class. He drew a pot-bellied, bald headed kid and named him Henry

His students liked the little fellow, so 67-year-old Anderson sent some drawings off to the Saturday Evening Post. The magazine editors snapped up the strip. Debuted on March 19, 1932 in the Saturday Evening Post, "Henry" appeared as a weekly feature. The main character didn't say much, relying on pantomime humour in a simple, minimalist style. Readers were captivated by the antics of "Henry." Two years later, a German magazine published the panel - silent humor was good in any language, after all. 
Newspaper magnate William Randolph Hearst promptly had Anderson signed to use the character in a newspaper strip for his King Features Syndicate. Transforming from a weekly into a daily strip, "Henry" debuted in his new format on December 17, 1934. Anderson's strip made it into the Sunday Funnies a few months later, taking the pages by storm in March 1935. 

At age 70, Carl Anderson finally reached the pinnacle of cartooning success. Enjoying the creation of his own successful strip, Anderson was forced by arthritis to pass the fate of characters - Henry, Henrietta, Butch the Bully, Dusty, and others - over to his assistants in 1942. Don Trachte took over the Sundays and John Liney created the dailies, both with little change to the classic strip. Carl Thomas Anderson passed away in 1948. Never married, there was no wife or children to survive him. 

"Henry" was in good hands. Liney drew the strip for nearly 40 years. On his death, cartoonists Jack Tippit and Dick Hodgins took over the pens. Trachte continued his part of the strip until retiring in 1993 when he was 78 years old.

Published by Dell Comics, "Henry" appeared in his own comic book from 1946 to 1961. The main character and his co-stars spoke in the comic books, with less reliance on pantomime. Still in repeat distribution under King Features Syndicate, "Henry" fans delight in the antics of "Henry" and his friends in about 75 newspapers.

Feel free to download an old "Henry" comics  and have a laugh-y reading....

Henry Story
Henry - Summer

(9.4 MB)

Henry (May-June)

(6.9 MB)


Wednesday, July 30, 2014

বাঙালী কমেডি অভিনেতাদের কথা

উনিশ শতকের প্রথম দশকেই শুরু হয়ে গিয়েছিলো হাসির উপাদান নিয়ে ছায়াছবিতে, গানে, মঞ্চে উপস্থিত হবার চেষ্টা। তারপর এলো স্বর্ণযুগ - কমেডিয়ানদের স্বর্ণযুগ। একদল নামকরা, প্রতিভাধর হাস্যকৌতুক অভিনেতাদের আবির্ভাব ঘটলো। হাসির গানে, হাসির অভিনয়ে তাঁরা মাতিয়ে রাখলেন বাঙালীদের। অনুপকুমার, রবি ঘোষ পর্যন্ত চললো তার রেশ। তারপর হারাধনের নয়টি ছেলেদের মতোই তাঁরা সবাই একে একে হারিয়ে গেলেন - পড়ে আছেন শুধু চিন্ময় রায়। 



অবশ্য এখনকার দিনের ছোটখাট কমেডিয়ানরা এখনও তাঁদের অভিনয় দিয়ে দর্শকদের হাসাবার চেষ্টা করছেন - কিন্তু সেই স্বত:স্ফুর্ত অনাবিল হাসির ফোয়ারা তাঁরা আর তুলতে পারছেন না। হয়তো বা রূড় বাস্তবের আঘাতে ক্লান্ত বিষন্ন মানুষেরা আজ হাসতেই ভুলে গেছেন। হয়তো বা হাসির বিষয়গুলো তেমন করে তাঁদের মনে ধাক্কা দিতে পারছে না। এরজন্য হয়তো কাউকেই দোষ দেওয়া যায় না। সব ব্যাপারটাই তো একটা "টিমওয়ার্কের" ব্যাপার। সাহিত্যজগতেও তো স্বর্ণযুগ অতিক্রান্ত। তেমন ভালো হাসির গল্প হয়তো আর লেখা হচ্ছে না। 

কিন্তু সেই স্বর্ণযুগের মানুষগুলো আজ সত্যি সত্যিই হারিয়ে যেতে বসেছেন। যাঁরা সারাজীবন প্রাণপাত করে, নিজেদের সুখ-দু:খের দিকে না তাকিয়ে মানুষকে হাসিয়ে গিয়েছেন,  আজ তাঁদের স্মৃতিচারণ করা আমাদের উচিৎ - তাঁদের সমন্ধে জানা উচিত উত্তরসুরীদের। এই ইচ্ছা থেকেই আজকের এই পোস্টের উত্থাপন। হারানো দিনের চার খ্যাতনামা কমেডি অভিনেতা: তুলসী চক্রবর্তী, নবদ্বীপ হালদার, হরিধন মুখোপাধ্যায় আর নৃপতি চট্টোপাধ্যায়ের কিছু কথা এখানে তুলে ধরা হলো।   




কামধেনুর কাহিনী - শ্রীবীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্র

শ্রী বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের কথা মনে করলেই অবশ্যম্ভাবী ভাবে 'মহালয়ার' কথা মনে চলে আসে। শারদপ্রাতে মহালয়ার পুণ্য তিথির ভোর-সকালে তাঁর মন্দ্র কন্ঠের  নির্ভূল স্বরে উচ্চারিত দেবী স্ত্রোত্রপাঠ শুনলেই গায়ের সকল রোমকূপ যেন কেমন অজানা ভয় ও রোমাঞ্চে শিহরিত হয়ে উঠতো। দেবী দূর্গার প্রতি ভক্তিভাবের সূচনা তো করে দিতেন তিনিই !!  


তা তিনিও মাঝে-সাঝে একটু-আধটু গল্প লিখতেন, নানান জায়গায়।  তাঁরই লেখা এক পৌরাণিক গল্প এখানে তুলে ধরা হলো। 

'যা চাওয়া হবে, তা-ই পাওয়া যাবে' এরকম কোন জিনিষ তৈরীর আকাঙ্খা মানুষের চিরদিনের। কিন্তু আমাদের বিজ্ঞান এখনো অবধি এরকম কোন কিছু সৃষ্টির ধারেকাছে যেতে পারেনি। কিন্তু বিধাতা পুরাকালে ঠিক এই রকমই একটি জিনিষ এই পৃথিবীতে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন - তার নাম ছিলো 'কামধেনু' - আর সেই কামধেনুকে নিয়েই ঘটে গিয়েছিলো নানান ঝামেলা, এমন কি যুদ্ধ পর্যন্ত। সেই 'কামধেনু'-র কাহিনীটি খুব সুন্দর করে বর্ণনা করেছিলেন প্রয়াত শ্রীবীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্র মহাশয়।   

এই গল্পটি প্রথম প্রকাশিত হয়েছিলো বহুবছর আগে দেব সাহিত্য কুটীর থেকে বার হওয়া 'ইন্দ্রধনু' (১৩৬১) পূজাবার্ষিকীতে...




গোপাল ভাঁড় - Gopal the Jester (অমর চিত্র কথা)

গোপাল ভাঁড়  ছিলো কৃষ্ণনগরের মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্রের নাপিত। চতুরতা, রসিকতায় ভরা গোপালকে অনেকসময় বলা হতো 'বাংলার বীরবল' - যে কোন জটিল বা ঝামেলার কাজের সমাধান যোগাতে গোপাল নাপিতের জুড়ি মেলা ছিলো ভার।   


রাজার সুনজরে থাকা স্বত্তেও গোপাল কিন্তু সাধারণ লোকের মাঝে, সাধারণ হয়েই থাকতে ভালোবাসতো - আর সেই কারণে পাড়া-প্রতিবেশীসহ সবাই গোপালকে বিশেষ পছন্দ করতো। 

Read here one of the old-gold ACKs, featuring 'Gopal the Jetser'....




Tuesday, July 29, 2014

দেবতা কি গ্রহান্তরের মানুষ ?

সারা পৃথিবী জুড়েই ছড়িয়ে রয়েছে  অদ্ভুত, অসম্ভব সব বিবরণ - বস্তু এবং ধ্বংসাবশেষ, যাদের ব্যাখ্যা প্রত্নতত্ব, ইতিহাস, কিম্বা ধর্মের গতানুগতিক ধারায় দেওয়া সম্ভব হয়নি। পৃথিবীর সমস্ত ধর্মপুস্তকে রয়েছে অগ্নিগর্ভ রথে 'দেবতাদের' মর্তে আগমনের নানানতরো বিশদ বিবরণ। আরো রয়েছে, তাঁদের পুনরাগমনের প্রতিশ্রুতি।  কিন্তু কেন? নানা সংস্কৃত পুঁথিতে কেমন করে লেখা হলো মহাকাশযানে ভ্রমণের কথা ?  মধ্যাকর্ষণের কথা ? মহাকাশে যাত্রাকালে যে জাগতিক এবং মহা-জাগতিক সময়ের মাঝে বিরাট তারতম্য ঘটে, এই সেদিন এযুগের বিজ্ঞানী আইনস্টাইন যার সূত্র আবিষ্কার করেছেন, সেই time dilation-এর খবর মহাভারতের কাহিনীকার জানলেন কেমন করে?   কোথা থেকেই বা জানলেন তেজস্ক্রিয়তার কথা, যার কথা অ্যাটম বোমা ফাটানোর আগে আমরা কল্পনাই করতে পারিনি ?  

এরিক ফন দানিকেনের "ERINNERU GEN AN DIE ZUKUNFT" গ্রন্থের ইংরেজী অনুবাদ "Chariots of the Gods", আর সেখান থেকে করা বাংলা অনুবাদ 'দেবতা কি গ্রহান্তরের মানুষ' একসময় পাঠকসমাজে যথেষ্ঠ সাড়া জাগিয়েছিলো। মূল গ্রন্থটির প্রথম  প্রকাশ ঘটেছিলো পশ্চিম জার্মানীতে ১৯৬৮ সালে - পৃথিবীর ৩৭  ভাষায় বইটি অনূদিত হয়েছিলো।  বাংলাতে এই বইটি প্রকাশিত হয় 'লোকায়ত প্রকাশন' থেকে ১৯৭১ (বাংলায় ১৩৬৮) সালে - আমার জন্মেরও আগে !

দেবতা কি গ্রহান্তরের মানুষ?

পূজা-পার্বণে ভ'রে থাকা, তীব্র ঈশ্বরে-বিশ্বাসী আমাদের বাড়িতে যে এই বইটার আগমন ঘটেছিলো কোন সাহসে সেটা আজ ভাবলে কিছুটা বিস্ময়ই জাগে মনে! 

বাঙালি পাঠক নভেল-নাটকের একঘেয়েমি থেকে হামেশাই ছুটি চান, তাই ভারতীয় অন্যান্য সাহিত্যে যা প্রায় বিরল, সেই 'প্রবন্ধ'-এর কদর তাঁদের কাছে এত বেশি। একঘেয়েমির হাত থেকে বাঁচার জন্যেই বোধহয় বাঙালি বেড়াতে খুব বেশি ভালোবাসে। সেই একই কারণে এই বইটি প্রকাশের সাথে সাথে বাঙালি পাঠক একে আদর করে তুলে নিয়েছিলেন।

এই পোস্টে রইলো সেই বিতর্কিত, দু:সাহসী, মনে হাজার-প্রশ্ন-উদ্রেককারী বইটি থেকে দুটি পপুলার অধ্যায় - চলুন পড়া শুরু করা যাক তা'হলে !

দেবতা কি গ্রহান্তরের মানুষ?
(Size: 40 MB)

ফুটপাথের বই - প্রেমেন্দ্র মিত্র

"তিন ভাই... তিন জাহাজ...
দুপুর বেলায় যাত্রা... সূর্য্য পথ 
বাতলায়...আলো থেকেই আসে আলো... 
আর তাতেই আঁধার কাটে..." 

এই ধাঁধা পড়েনি এমন কোন কিশোর আজকালকার যুগে খুঁজে পাওয়াই মুস্কিল। রাস্তার দোকান থেকে সস্তায় কেনা পুরানো এক জাহাজের মডেলের মাস্তুলের মধ্যে লুকিয়ে রাখা হয়েছিলো এই ধাঁধার চিরকুটটা। আর সেটাকে খুঁজে পাবার জন্যেই শুরু হয় একের পর এক ধুন্ধুমার কান্ড।  
প্রেমেন্দ্র মিত্র  (1904 - 1988)

টিনটিনের সেই কালজয়ী গল্পের আদলেই লেখা প্রেমেন্দ্র মিত্রের এই রহস্য কাহিনীটি - প্রকাশিত হয়েছিল শারদীয়া শুকতারায়, ১৩৯৩ সালে।   




Monday, July 28, 2014

Tintin Movie by Spielberg - A Retrospective

"Every time I find something new, it's always about a story. Whenever I find something new to do, I get excited again. I become a kid again. The fountain of youth for me is an idea or story. I either come up with it myself or read something that somebody else writes and I say, 'Oh my God, I've got to tell that story. I've got to make that movie.' That's what keeps me going..."  
            - Steven Spielberg


Steven Spielberg is a man that needs no introduction. He is one of the most influential and inspirational minds in cinema and arguably the most successful (and versatile) director of all time. 

While Steven Spielberg’s "The Adventures of Tintin" was not a major box office success in US (made only $77 million), the worldwide take ($373 million) was far more impressive. And though the motion-capture film was not an incredibly faithful adaptation of Hergé’s beloved comic strip, it was considered by some to be the old school Spielberg action-adventure that "Indiana Jones IV" should have been. The Adventures of Tintin 2 is slated to be directed by Peter Jackson and might hit theaters in 2015, if all goes well.

Read the brief bits on his 1st Tintin movie (2011) and some nice insights.





শার্লক হেবো - নারায়ণ সান্যাল

বাংলা সাহিত্যের জগতে নারায়ণ সান্যালের সাথে আমার প্রথম পরিচয় ঘটে ব্যারিস্টার 'বাসু সাহেবের' হাত ধরে। মূলত: স্ট্যানলি গার্ডনার-সৃষ্ট "প্যেরী  মেসন, বার-অ্যাট-ল"-এর আদলে গড়ে তোলা বাঙালি চরিত্র, ব্যারিস্টার বাসু সাহেবের সওয়াল-জবাবের মাধ্যমে, ওকালতি প্যাঁচে জটিল রহস্যগুলির বিশ্বাসযোগ্য সমাধান, বাঙালি পাঠকসমাজে এক সম্পূর্ণ অন্য জগতের স্বাদ এনে দেয়। সত্যজিৎ রায়ের ফেলুদার মতো না-হলেও নারায়ণ সান্যালের 'কাঁটা সিরিজ' বাংলা গোয়েন্দা গল্পের জগতে অচিরেই যথেষ্ঠ আলোড়ন তুলে ফেলে - যার ফলস্বরূপই ১৯৭৪ সালে 'যাত্রিক'-এর পরিচালনায় বাংলা ছায়াছবি, 'যদি জানতেম'-এর আবির্ভাব ঘটে। নারায়ণ সান্যালের বিখ্যাত উপন্যাস, 'নাগচম্পা' অবলম্বনে চিত্রায়িত এই রহস্যমূলক ছবিটির মুখ্য চরিত্রগুলিতে অভিনয় করেছিলেন মহানায়ক উত্তমকুমার ('বাসু সাহেব'), রুমা গুহঠাকুরতা ('রাণু দেবী'), সৌমিত্র চ্যাটার্জী ('কৌশিক মিত্র') ও সুপ্রিয়া চৌধুরী ('সুজাতা') এবং আরও অনেক বিশিষ্ঠ অভিনেতা। তবে শুধু রহস্য উপন্যাসই নয়, সাহিত্যের ভিন্ন ভিন্ন আঙ্গিকে লেখা নারায়ণ সান্যালের বইগুলি পড়লে মনের মধ্যে প্রশ্ন জাগতে বাধ্য যে একই লেখক কি রকম ভাবে, কি অসীম দক্ষতায় সেই বইগুলির সৃষ্টি করেছিলেন। এত ভার্সাটাইল লেখক বাংলা সাহিত্যের জগতে খুব একটা বেশী দেখা যায় নি। 

নারায়ণ সান্যালের লেখা বইগুলি মূলত: 'মিত্র ঘোষ', 'দেজ পাবলিশার্স' ও 'দেব সাহিত্য কুটির' থেকে বার হতো। এখনও পর্যন্ত সেগুলো যথেষ্ঠ সুলভ মূল্যেই সর্বত্র পাওয়া যাচ্ছে - তাই সেগুলি নিয়ে নতুন করে কোন ব্লগ বা পোস্ট লেখার  তেমন কোন মানে হয় না। কিশোর গোয়েন্দা হিসাবে নারায়ণ সান্যাল ষাটের দশকের শেষ দিকে সৃষ্টি করেছিলেন 'শার্লক হেবো' বলে আরেকটি মজার চরিত্র, যেটি সেই সময়ে অতোটা পপুলার হয়ে ওঠেনি - অন্তত: কাঁটা সিরিজের গল্পগুলির মতো নয়। এই পোস্টে আমি সেই স্বল্পখ্যাত 'শার্লক হেবো'-র কয়েকটি রহস্যকাহিনী একসাথে তুলে ধরলাম। এই গল্পগুলি অন্যান্য কয়েকটি বাংলা (বাংলাদেশী) ব্লগেও ফ্রী-তেই পাওয়া যাচ্ছে - কিন্তু সেগুলোর স্ক্যান কোয়ালিটি তেমন ভালো নয় - একই scanned copy নানান ব্লগারদের ব্লগে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে !! অগত্যা আমার নতুন এই বিড়ম্বনা। 

'শার্লক হেবো'-কে নিয়ে নারায়ণ সান্যাল সর্বসমেত চারটি গল্প লিখেছিলেন: 'গুরুবিদায় পর্ব', 'আদি পর্ব', 'পলাশপুর পর্ব', এবং সব শেষে 'শার্লক হেবো ফিরে এলেন', যেটি ১৩৮১ সালে দেব সাহিত্য কুটিরের 'মণিদীপা' পূজাবার্ষিকীতে প্রথম প্রকাশিত হয়েছিলো। 'হেবোর' চরিত্রের মধ্যে 'হোমসের' ক্ষুরধার বুদ্ধির সাথে সাথে 'পাগলা দাশুর' অস্তিত্বও কিছুটা লক্ষ্য করা যায়, যেটা আমার মনে হয় এই সিরিজের এক উপরি পাওনা !!  


পাবলিশার্স: উজ্জ্বল সাহিত্য মন্দির
১৯৯২-র কলকাতা বইমেলায় শার্লক হেবোর এই চারটি গল্প একত্রে করে 'উজ্জ্বল সাহিত্য মন্দির' থেকে 'শার্লক হেবো' নাম একটি বই বার হয়েছিলো - যেটিতে প্রখ্যাত কার্টুনিস্ট চন্ডি লাহিড়ীর সাথে সাথে, স্বয়ং নারায়ণ সান্যাল নিজেও কয়েকটি ছবি এঁকেছিলেন। এই পোস্টে সেই বই থেকে ছবিগুলি একসাথে করে দেওয়া হলো। 


গুরুবিদায় পর্ব
আদি পর্ব
পলাশপুর পর্ব
১৩৬৫ সালের কার্তিক মাসের শুকতারা সংখ্যায় 'হেবোর' সর্ব প্রথম কাহিনীটি প্রকাশিত হয়। সেই কাহিনিটিতে লেখক 'শার্লক' না-বলে 'সার্লক' লিখেছিলেন। সেই গল্পটি আকারে ছিলো অনেক ছোট এবং পরবর্তীকালে সেটাই লেখক 'আদি পর্ব' হিসাবে আরও বড়ো করে প্রকাশ করেন। কেন যে ঠিক তা করেছিলেন, সেটা এখন কেবলই অনুমান নির্ভর। শার্লক, থুড়ি সার্লকের সেই সর্ব প্রথম কাহিনীটিও এখানে আলাদা ভাবে দেওয়া হলো। আমার বিশ্বাস খুব কম পাঠকই এই কাহিনীটি আগে কখনো পড়েছেন। 

তাহলে, আর দেরী কেন? শার্লক হেবোর হাত ধরে চলুন ঘুরে আসা যাক সত্তর দশকের সেই সোনার দিনগুলোতে... 



১) শার্লক হেবোর তিন কাহিনী   
২) সার্লক হেবোর সর্বপ্রথম কাহিনী (শুকতারা - কার্তিক, ১৩৬৫) ***





An elegant joker with a serious side

The artist/author who created Tintin was a man who saw humor everywhere. He was a perfectionist, he could be passionate, but he liked to laugh and to make others smile. As a master of word play and repartee, and a good mimic, there was in his world a funny side to nearly everything that made the many complications and difficulties of life bearable. 

Herge was in some respects a comedian, but like many great comics he had a depressive side. It was as if he needed the humor to lift him out of such moods. People found it difficult to understand that he could be serious and make jokes. He always kept his sense of humor, even at the end when desperately ill.


Herge (George Remy)

Read the interesting biography of the author, George Remy and know the fascinating sides of his life and passions...



দশ অবতার - শ্রী নৃপেন্দ্রকৃষ্ণ চট্টোপাধ্যায়

"Yada Yada Hi Dharmasya 
       Glanir Bhavati Bharata 
Abhyutthanam Adharmasya 
       Tadatmanam Srjamy Aham
Paritranaya Sadhunam
     Vinasaya ca Duskrtam
Dharma-samsthapanarthaya
               Sambhavami Yuge Yuge..."

(Translation from 'Bhagavad Gita' As It is: "Whenever and wherever there is a decline in religious practice, O descendant of Bharata, and a predominant rise of irreligion -- at that time I descend Myself.In order to deliver the pious and to annihilate the miscreants, as well as to reestablish the principles of religion, I advent Myself millennium after millennium...")

This is one of my favorite verses from the Bhagvad Gita. আশির দশকে তৈরী  বি. আর. চোপড়ার 'মহাভারত' TV সিরিয়ালের দৌলতে শ্রীকৃষ্ণের এই শ্লোক বা বাণী আমাদের সামনে এক নতুন ভাবে দেখা দিয়েছিলো। মানবজাতিকে নিশ্চিত ধ্বংসের হাত থেকে বাঁচাতে ঈশ্বর যুগে যুগেই নানান 'অবতারের' রূপে এই ধরাধামে আবির্ভূত হয়েছিলেন, এবং প্রয়োজনে আবারও হবেন, তা বলে গিয়েছেন এই শ্লোকের মধ্যে দিয়ে। ধরাধামে আবির্ভূত হওয়া তাঁর সেই সব রোমাঞ্চকর কাহিনীগুলোকেই একসাথে বলা হয়ে থাকে 'দশ অবতার', যার সবগুলোর নাম আজ আমরা অনেকই জানিনা - বা জানলেও কিছু কিছু এখন ভুলে গেছি। 

সেই ভুলে যাওয়া কাহিনীগুলোকে আবার সবার সামনে তুলে ধরার প্রয়াসেই হলো আমার আজকের এই 'দশ অবতার'-এর পেজটি। গল্পগুলিকে কি সুন্দরভাবেই না বর্ণনা করে গিয়েছিলেন সেকালের খ্যাতনামা লেখক, শ্রদ্ধেয় 'শ্রী নৃপেন্দ্রকৃষ্ণ চট্টোপাধ্যায়' মহাশয়। গল্পগুলির সবকটিই একসাথে  প্রকাশিত হয়েছিলো আজ থেকে বহু বহু বছর আগে, ১৩৫৮ সালের অশ্বিনের মহালয়ার পুণ্যতিথিতে, 'দেব সাহিত্য কুটির' থেকে - নাম ছিলো 'অভিষেক'।  
  

সুতরাং আর দেরী না করে পড়ার জন্যে নিচের লিংকটিতে এবারে ক্লিক করুন...

দশ অবতার
(Size: 7.5 MB )



Sunday, July 27, 2014

GARTH - A time-travelling Superhero

"Garth" was the famous British newspaper, Daily Mirror’s time-travelling comic strip superhero, started on July 24, 1943 and ended on March 22nd 1997. It was created by Steve Dowling for the Daily Mirror. Garth's time-travelling adventures lasted for over 50 years and covered 165 stories. Due to public demand, reprints of these classic stories began in 2011.
Garth as drawn by Frank Bellamy
Author: Steve Dowling
Life span: July 24, 1943 - March 22, 1997
Publisher: Daily Mirror

Characters & Story
As a small child the man who would become Garth was washed ashore in the Shetlands in a tiny coracle. Pulled out of the sea by an elderly couple who then adopted him, Garth grew up to be incredibly strong. He became a Naval Captain, but his boat was torpedoed. The shipwrecked Garth washed up from the sea on a wooden raft, amnesiac from his experiences, coming to land on a small island. He is discovered by Gala, a native girl, who introduces him to her people, and whom he later saves from a despotic tyrant. Later his friend Professor Lumiere psycho-analysed him, restoring his memories.

Slew of information
Garth was the brainchild of strip cartoonist and writer Steve Dowling and BBC producer Gordon Boshell. Both were working on the British national newspaper The Daily Mirror at the time.... (and) were approached by the editor, who wanted a new strip. Boshell and Dowling came up with the concept of a "strong man" strip, loosely modelled on the popular American comic book "Superman".

Garth had many adventures, travelling through time to a variety of eras and encountering a wide range of opponents. Among them was mad and evil scientist Madam Voss, who used a machine to exchange brains between bodies. Her brain ended up in Garth’s body and his in her body, but eventually Garth managed to restore his mind to his own body. She would return to battle him on a number of occasions. 


"The first "Garth" daily strip appeared in the Mirror on Saturday 24th July 1943. It showed our hero, an amnesia victim, washed up from the sea on a wooden raft. He is discovered by Gala, a native girl, who introduces him to her people, and whom he later saves from a despotic tyrant." 


So what are you waiting for? Say 'Thanks', and start reading here one of the vintage GARTH stories: "Quest of G-Ray




Saturday, July 26, 2014

'রিপ্লের আজব খবর'-এর দেশে

When I was a li'l kid, I did not have much toys, nor any kind of cool gadgets to play with - what I had was a bunch of story-books & comics, and that also not too many in numbers. So I, as well as most of the kids in that time, used to read the same books, same pages over and over again !! It is like, first you read only the main story, ignoring the supplement ones - then you again start over and read the main story together with the supplement ones, and so on and on... And this is the way I started to like the "রিপ্লের আজব খবর", which used to be covered on last few pages in many 'Indrajal Comics' issues. Mostly the eerie, scary, strange-looking, weird pictures made us all feel interested about "Ripley".


Robert Ripley was sculpted in stone (1937) by a 25 year old
blind artist, named "Mark Shoesmith"
At that time I never imagined that such a place exists on earth, or rather I will be ever be able to visit such place. But God has the final say!!  In July 2007, I, together with my friends decided to visit the world famous "Niagara Falls" and "CN Tower (Toronto)". Going there I came to know that there is a popular local attraction, called "Ripley's Believe It or Not!" museum. I was so thrilled and excited that others started laughing!! It is not like that I am, or I ever was a big fan of Ripley's facts/stories - but it is more of something that you can really touch coming back from your long-lost childhood days, which you ever thought to be possible !!

So, one cloudy day we all started to visit to the famous "Ripley's Believe It or Not" museum @ Clifton Hill, Niagara Falls city. The place was pretty kooky, creepy, mysterious and spooky with all kinds of strange things. If you flip inside a "Ripley's Believe It or Not!" book - basically that's what this place is, in glorious three dimensions.
Ripley's Believe It or Not!
(4960 Clifton Hill, Niagara Falls, Canada)


Ripley's isn't the largest, but if you take your time to "appreciate" the cheesy reproductions, you can spend a decent hour here laughing, getting grossed out, and taking photos. It is a self-guided tour, so you can spend as much time as you'd like once inside. Luckily it was a slow day, not too much crowded,  which was good for us - we got chance to stop and look for a while without feeling rushed or claustrophobic with people.
We examined lot of the displays, read their facts, but soon we realized there's a lot of that. The items there ranged from interesting to gross to beautiful, to really creepy, to cool, to weird - just like I found on the IJC book pages. 

I love reading the placards and checking out what each exhibit has to offer - places like this always intrigue me. Despite their lack of updates, I still had a genuinely great time here at the museum. The mirror, rolling barrel,  interactive games, illusions, disorienting black-lit  spinning tunnel, were definitely the highlights. There were actually some pretty interesting, wacky stuff and some of it is actually rather educational - although much of the stuff is real, you should definitely not believe everything you see!! But I doubt that I would return here again as the second time around, was more of a walk down memory lane than a truly enlightening experience. 

Download here few of the vintage "Ripley's Believe It or Not!" comics and have a happy reading ! 

রিপ্লের আজব খবরের দেশে




লাকি লুক - Tying The Knot (Book# 45)

Time for the Daltons to try on a different kind of ball-and-chain!

Synopsis: Urgent message for the Dalton brothers: the president has approved a special measure to combat overpopulation in the country’s prisons. They’re going to be... "hanged" !! Their last hope lies in a little known law that would see them walk free if they were to marry. A frantic 'Ma Dalton' tries to locate brides for her boys, but their reputation precedes them, and the only candidates she eventually locates could well turn out to be a worse choice than the rope.

The original creator Morris has left us, so did his literary collaborator Goscinny - but there’s been a healthy succession of writers and artists who step up to keep the stories coming. In this story the iconic character remains consistent, no matter whether it’s a blade of grass or a fag hanging laconically from his mouth. Lucky Luke is still the cowboy who can shoot faster than his shadow, his adventures inevitably revolve around some nefarious characters that require his unique skill set to round up and get the better of, before he rides out of town once more, just him and loyal equine companion Jolly Jumper, forever wandering, the epitome of the lonesome cowboy riding the range.

The first part of this funny Lucky Luke adventure is now available for free....

Series: Lucky Luke - Book# 45 (48 pages)
Publisher: Cinebook Ltd (July 7, 2014)




First Part

Last Part











Friday, July 25, 2014

The Black Island (Tintin) - Young Readers Edition

'The Black Island' is perhaps the greatest Tintin adventure. I love all the other Tintin stories passionately, but this one in particular, is perhaps my favorite among my favorites.

Here Tintin flies an airplane, sails a boat, fights with "wild beasts" beats the bad guys, and even wears a kilt. But this book is special for far more reasons. The landscape scenes around Tintin are superb, the drawing is great, and the plot, sublime. The suspense is incredible, too. No one will take him to the Black Island. Even though everyone is scared out of their minds, Tintin decides to go, risking everything...

But how many of us read "This" Tintin Book?

This new format, crafted specifically for younger readers, features the original Tintin graphic novel plus 20 pages of bonus material content. The "behind the scenes" contains the true story about people, places and antiquities that Hergé drew from, filled with fun facts, lots of cool pictures, and easy-to-read text!

So, what are you waiting for? If you are a true Tintin fan, go ahead and start reading Now (see the download link at bottom) !

Herge & Fanny in Taiwan, 1973
It was with Fanny that his horizons broadened and he 
began to travel frequently...

Herge & Fanny on their travels
In 1950 Herge set up the 'Studios Herge' where
he gathered a competent team to help him sort
out the runway success of Tintin
Taking on a small team Herge created the 
'Studios Herge' in 1950
People found it difficult to understand that 
he could be serious and make jokes
Herge (2nd from the right) and his boy scout troop, 1927
Herge - A journalist at Heart